তোমাকে চাই

খুব চেয়েছিলাম -তুমি আসবে, 

উত্তপ্ত ওই ভূমিতে শীতলতা আনবে।
মনে প্রাণে চেয়েছি তোমায় ,
রাঙ্গাবে হৃদয় বৃষ্টির ফোঁটায়।
যদি আমি পারতাম –
কয়েক পশলা বৃষ্টি চেরাপুঞ্জি থেকে ধার নিতে,
রাজস্থানের তপ্ত ভূমি কে সিক্ত করতে,
কিংবা অগ্নিসিক্ত আমাজনকে উদ্ধার করতে,

তাহলে তোমার কাছে ভিক্ষে কি চাইতাম ?
বিশ্বাস করো, তোমার ওপর অগাধ আস্থা ছিল।
তাই আমার এই সারা দেহ -মন জুড়ে ছিল

শুধু ভালোবাসা- তোমার প্রতি।
হৃদয় গভীরে রেখেছিলাম -এক ভালোবাসার খনি।

যদি আমি পারতাম পাহাড়ের গা থেকে
ধ্বসে পড়া পাথরগুলো দিয়ে
সুন্দর করে কম্বল বানাতে,
আছড়ে দিতাম আগুন এর লেলিহান শিখাতে,
মেরে ফেলতাম অগ্নিদেব এর অহংকারকে।
একটাই শুধু দাবি ছিল তোমার কাছে।

বলেছিলাম -আগুনের লেলিহান শিখার অবসান ঘটাতে।
আমাজানের প্রাণী-উদ্ভিদদের জীবন নেওয়াতে মেতেছে
যে অগ্নিদেব ,আশা করেছিলাম তুমি যাবে মহিষাসুরমর্দিনী হয়ে,
তার প্রাণ নিতে কিংবা তার কিছুটা তেজ
তুমি তোমার মেঘের পিঠে চাপিয়ে
নিয়ে যাবে সুমেরু-কুমেরুর মতো ঠান্ডা দেশে।
আশ্বাস দেবে আমাজানের প্রাণীদের।

এই কঠিন পরিস্থিতিতে কী করে পথ হারালে,

পথ হারিয়ে নেমে এলে কলকাতাতে?

যাও বৃষ্টি, যাও – আমাজনের জঙ্গলে,

তোমার দক্ষতার পরিচয় যেন মেলে-

খবরের কাগজে একদম সকালে,

প্রতিক্ষায় থাকবো আমরা সক্কলে।

Thank you for reading. Let us make a beautiful world together. God bless.